বিয়ে

গবেষকেরা বলছেন, বিয়ে স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। বিশেষ করে বেশি বয়সে পাশে একজন সঙ্গী থাকলে সুস্থ থাকবে আপনার হৃদ্‌যন্ত্র, স্ট্রোকের আশঙ্কাও কমবে।

বিয়ে নিয়ে নানা মুনির নানা মত। কেউ এই ‘দিল্লি কা লাড্ডু’র জন্য উন্মুখ হয়ে থাকেন। কেউ দূরে থাকতেই ভালোবাসেন। আবার বিয়ের পর মুখ আমসি করে থাকা লোকের সংখ্যাও নেহাত কম নয়। তবে গবেষকেরা বলছেন, বিয়ে স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। বিশেষ করে বেশি বয়সে পাশে একজন সঙ্গী থাকলে সুস্থ থাকবে আপনার হৃদ্‌যন্ত্র। আর স্ট্রোকের আশঙ্কাও কমবে।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে, চিকিৎসা সাময়িকী হার্টে সংশ্লিষ্ট গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে। গবেষণার জন্য ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্য ও এশিয়ায় দুই দশক ধরে জরিপ চালানো হয়। জরিপে অংশ নেন ২০ লাখের বেশি মানুষ, যাঁদের বয়স ৪২ থেকে ৭৭ বছর।

গবেষণায় দেখা গেছে, সংসারী দম্পতির তুলনায় তালাকপ্রাপ্ত, বিধবা বা কখনোই বিয়ে করেননি—এমন ব্যক্তিদের হৃদ্‌যন্ত্র-সংক্রান্ত রোগে আক্রান্ত হওয়ার হার বেশি।

বিয়ে না করা ব্যক্তিদের হৃদ্‌রোগে মৃত্যুর ঝুঁকি ৪২ শতাংশ। আর স্ট্রোকে মৃত্যুর ঝুঁকি ৫৫ শতাংশ। এ ক্ষেত্রে নারী-পুরুষভেদে খুব বেশি পার্থক্য হয় না।

রয়্যাল স্ট্রোক হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের গবেষক দলের প্রধান চুন ওয়াই ওং বলেন, ‘এসব ফলাফলে বোঝা যাচ্ছে যে কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি মূল্যায়নে ব্যক্তির বৈবাহিক অবস্থা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

৫ ভাগের ৪ ভাগ হৃদ্‌রোগের পেছনে থাকে কিছু ঝুঁকি। এর মধ্যে রয়েছে বয়স, উচ্চ রক্তচাপ, কোলেস্টরেলের উচ্চমাত্রা, ধূমপান, ডায়াবেটিস প্রভৃতি। গবেষকেরা বলছেন, এই তালিকায় যুক্ত হবে বৈবাহিক অবস্থাও।

তবে নিন্দুকেরা বলছেন, গবেষণাটি পর্যবেক্ষণমূলক। কোনো নিয়ন্ত্রিত পরীক্ষা চালানো হয়নি বলে এমন গবেষণার ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট উপসংহারের পৌঁছানো কঠিন।

গবেষকেরা এক বিবৃতিতে বলেছেন, বিয়ের পর একজন আরেকজনের খোঁজখবর রাখেন। অনেক সময় ওষুধ খাওয়ার কথাও মনে করিয়ে দেন। আবার স্বামী-স্ত্রীর সংসারে দুজনেই রোজগার করলে সেটিও আর্থিকভাবে চিন্তামুক্ত রাখে। এভাবে বিয়ে নানা দিক থেকে জীবন রক্ষা করে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্ট গবেষকেরা।

অবশ্য বিয়ের সুফল জানানোর গবেষণা এই প্রথম নয়। এর আগে আরেক গবেষণায় জানানো হয়েছিল, বিয়ে করলে নাকি স্মৃতিভ্রংশ হওয়ার আশঙ্কা কম!

বি:দ্র: আমাদের প্রতিটি লেখার নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুকপেজ-এ লাইক দিন এবং বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এবং যেকোন বিষয়ে জানতে চাইলে অথবা আপনার কোন লেখা প্রকাশ করতে চাইলে আমাদের ফেসবুক পেজ বিডি লাইফ এ যেয়ে ম্যাসেজ করতে পারেন।

ফেসবুকের হোমপেজে নিয়মিত আপডেট পেতে নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করুন

⇒ লেখাটি ভালো লাগলে প্লিজ বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। শেয়ার করতে √ এখানে ক্লিক করুন

আপনার ফেসবুক একাউন্ট থেকে খুব সহজেই কমেন্ট করুন

মন্তব্য করুনঃ

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন

4 × 1 =