থানকুনি পাতার কয়েকটি রেসিপি

57

থানকুনি পাতা অনেক ভাবেই খাওয়া যায়। কে কিভাবে খাবেন, সেটা একান্তই নির্ভর করে তার রুচির উপর। আজকের এই লেখাতে আমরা থানকুনি পাতার কয়েকটি রেসিপি নিয়ে আলোচনা করব। আশা করি আপনাদের পছন্দ হবে। কে কোন রেসিপি-টি বানালেন, অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আপনাদের জন্য রয়েছে ফেসবুক থেকে অটো কমেন্ট করার অপশন।

রেসিপি-১ (ভর্তা)

থানকুনি পাতার বহুবিদ ব্যবহার আছে, আপনি ভর্তা বানিয়ে এই পাতা খেতে পারবেন।
থানকুনির ভর্তার রেসিপি:

প্রয়োজনিয় উপকরণ:

  • থানকুনি পাতা ৪০-৫০ টি,
  • রসুন ১ টি ,
  • পোড়া মরিচ কুঁচি ,
  • পরিমান মত পেঁয়াজ কুঁচি,
  • পরিমান মত লবন,
  • ও সরিষার তেল।

প্রস্তুত প্রণালি: থানকুনি পাতা কুচি কুচি করে কেটে মরিচ, পেয়াজ কুঁচি, রসুন, লবন মিশিয়ে বাটায় বেটে নিলেই ভর্তা প্রস্তুত হয়।

এছাড়া থানকুনির রস তো আছেই l রস বানানোর জন্য আপনি সিমপ্লি ব্লেন্ডার ব্যবহার করতে পারেন, স্বাদের জন্য আপনি হাল্কা কাচা মরিচ দিতে পারেন ব্লেন্ডারে, এতে করে একটু ঝাঁজ ঝাঁজ স্বাদ পাওয়া যাবে, একটু চিনিও দিতে পারেন। মোট কথা স্বাদের বিষয়টা নিরভর করবে আপনি কি ধরনের স্বাদ পেতে চান, তবে যেই স্বাদেরই বানান না কেন সাথে বরফ কুচি অবশ্যই দিবেন।

রেসিপি-২ (পিয়াজু)

প্রয়োজনিয় উপকরণ:

  • থানকুনি পাতা কুচি-১০০ গ্রাম
  • পুদিনা পাতা কুচি-৫০ গ্রাম
  • ডিম-১টি
  • পিঁয়াজ কুঁচি-২ টেবিল চামচ
  • রসুন কুঁচি-২ টেবিল চামচ
  • কালজিরা-২ চা চামচ
  • লবন-১ চা চামচ
  • কাঁচামরিচ কুঁচি-১ টেবিল চামচ
  • বেসন-৩ টেবিল চামচ
  • তেল-২ কাপ
  • ঘি-১ টেবিল চামচ

প্রস্তুত প্রণালি: প্রথমে একটি বাটিতে থানকুনি পাতা কুঁচি, পুদিনা পাতা কুঁচি, ডিম, পিঁয়াজ কুঁচি, রসুন কুঁচি, কালজিরা, লবণ, কাঁচা মরিচ কুঁচি, বেসন দিয়ে ভালকরে মাখিয়ে পিঁয়াজু তৈরি করতে হবে। এবার চুলায় একটি কড়াই দিন, কড়াইয়ে তেল ও ঘি দিন, তেল ও ঘি গরম হলে ভেঁজে তুলতে হবে। তৈরি হয়ে গেল থানকুনি পাতার পিঁয়াজু। সুন্দর করে সালাদ দিয়ে পরিবেশন করুন।

রেসিপি-৩ (রান্না)

পাতা কুচিয়ে পেঁয়াজ, মরিচ, লবণ আর সারিষার তেল মাখিয়ে এই ভর্তা তৈরি করা হয়।

পাত্রে তেল গরম করে পেঁয়াজ-রসুন-কাঁচামরিচ ভেজে মসুরের ডাল দিয়ে লবণ, হলুদের গুড়ো দিয়ে পানিসহ ফুটাতে হবে (চিংড়ি বা কাঁটাবাছা মাছ দেয়া যেতে পারে)। ডাল নরম হলে কুচানো থানকুনি পাতা দিয়ে উচ্চতাপে কিছুক্ষণ রেখে নামিয়ে নিতে হবে।

থানকুনি পাতার বড়া:

১. পাতা বেটে পেস্টের সাথে বাটা ডাল, পেঁয়াজ, কাঁচামরিচ মিশিয়ে বড়ার আকৃতিতে ডুবো তেলে ভাজা।

২. পাতা কুচি করে বাটা ডাল, পেঁয়াজ, কাঁচামরিচ মিশিয়ে বড়ার আকৃতিতে ডুবো তেলে ভাজা।

এছাড়াও আপনারা পড়তে পারেন: থানকুনির বিবিধ উপকারিতা ও ব্যবহার

বি:দ্র: আমাদের প্রতিটি লেখার নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুকপেজ-এ লাইক দিন এবং বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এবং যেকোন বিষয়ে জানতে চাইলে অথবা আপনার কোন লেখা প্রকাশ করতে চাইলে আমাদের ফেসবুক পেজ বিডি লাইফ এ যেয়ে ম্যাসেজ করতে পারেন।

ফেসবুকের হোমপেজে নিয়মিত আপডেট পেতে নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করুন

⇒ লেখাটি ভালো লাগলে প্লিজ বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। শেয়ার করতে √ এখানে ক্লিক করুন

আপনার ফেসবুক একাউন্ট থেকে খুব সহজেই কমেন্ট করুন

Leave a Reply