sleeping problem

আমরা সচরাচরই শুনে থাকি রাতে ভাল ঘুম হয়না বা মাঝ রাতে ঘুম ভেঙ্গে যায়, আর ঘুম আসে না এমন কত কথা। অনিদ্রা বা ঘুম কম হওয়া এখনকার সময়ের অন্যতম বড় সমস্যা। কাজের চাপ, মানসিক অস্থিরতা ও অন্যান্য কারনেও অনিদ্রার সমস্যা হয়ে থাকে। আর তার প্রভাবেই দেখা দেয় বিভিন্ন রকমের শরীরিক সমস্যা। ডায়বেটিস সহ ওজন বাড়ার মতো নানান ধরনের সমস্যার প্রধান কারণ অপর্যাপ্ত ঘুম। ভাল ঘুমের জন্য রইল কিছু টিপস-

১। এড়িয়ে চলুন
কফি, নিকোটিন, অ্যালকোহল জাতীয় জিনিস এড়িয়ে চলুন। এইসব জিনিস ভাল ঘুমের অন্তরায়।

২। রুটিন মেনে চলুন
রাতে নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমোতে যাওয়া ও প্রতিদিন সকালে নির্দিষ্ট সময়ে ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস রাখলে স্বাভাবিক ভাবেই ঘুম হবে ভাল। সেইসঙ্গেই খাওয়া দাওয়া ও দিনের অন্য কাজও যদি কিছুটা নিয়ম মেনে করেন তবে রাতে ঘুমও আসবে নিয়ম মেনে। ভাল ঘুমের জন্য এই নিয়মগুলো প্রতিদিন মেনে চলুন।

৩। পেট খালি রাখবেন না
খালি পেটে কখনো শুতে যাবেন না। আবার রাতে গুরুপাকও খাবেন না। ভরা পেটে শুতে যাওয়া ঠিক নয়। ঘুমাতে যাওয়ার বেশ কিছু আগেই রাতের খাবার খেয়ে নিন।

৪। ক্লান্তি ঝেড়ে ঘুমাতে যান
রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে গোসল করে নিতে পারেন। যদি গোসল করা সম্ভব না হয় ঘাড়, মুখ, হাত-পা পানি দিয়ে ধুয়ে মুছে নিতে পারেন। এতে ক্লান্তি দূর হতে পারে। ঘুমাতে যাওয়ার সময় সারা দিনের ক্লান্তি, উত্তেজনার কারণগুলো মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন।

৫। অসময়ে ঘুমাবেন না
অনেকেই ঘুমের জন্য সময়-অসময় মেনে চলেন না বলে রাতের ঘুম ঠিকমতো হয় না। দুপুরে লম্বা সময় ঘুমাবেন না। বিশেষজ্ঞরা বলেন, দুপুরের ঘুম আপনার শুধু কর্মক্ষমতাই কমাতে পারে, আপনার রাতের ঘুমও নষ্ট করে।

৬। ঘুমানোর আগে এক গ্লাস দুধ
দুধে থাকে ট্রিপটোফ্যান যা আপনাকে ঘুমাতে সাহায্য করবে। তাই শোয়ার আগে এক গ্লাস দুধ খেতে পারেন। দুধ খুব বেশি গরম না হওয়া ভালো।

৭। আরামদায়ক বিছানা
হাত, পা ছড়িয়ে, ভাল বিছানায়, আরামদায়ক বালিশ, তোষকে ঘুম হবে ভাল। তাই শোওয়ার ঘর পরিষ্কার ও গোছানো রাখার পাশাপাশি চেষ্টা করুন ছড়ানো ও আরামদায়ক বিছানায় ঘুমনোর।

৮। ওষুধকে না বলুন
রাতে ঘুম এলে অন্য চিন্তা বাদ দিয়ে ঘুমিয়ে পড়ুন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে সিগারেট, তামাক, চা, কফি না খাওয়াই ভালো। দুই-এক দিনের ঘুম না হওয়াতেই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হবেন না। ঘুম না হলে চিকিত্সকের পরামর্শ ছাড়া ঘুমের ওষুধ সেবন করবেন না।

৯। রাতে ল্যাপটপ, মোবাইল থেকে বিরতি নিন
রাতে ঘুমাতে যাওয়ার এক ঘণ্টা আগে ল্যাপটপ, মোবাইলের মতো যন্ত্রের ব্যবহার বন্ধ করে দিন। রাত জেগে ট্যাব, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, মোবাইলে সময় কাটালে তা শরীরের ওপর প্রভাব ফেলে এবং ঘুম নষ্টের কারণ হতে পারে।

১০। ডায়েট
খাদ্য তালিকায় স্বাস্থ্যকর খাবার রাখার পাশাপাশি চেষ্টা করুন খালি পেটে বা বেশি ভরা পেটে শুতে না যাওয়ার। অধিকাংশ শারীরিক ও মানসিক সমস্যারই প্রধান কারণ অনিয়মিত ও অস্বাস্থ্যকর খাওয়া দাওয়া। এছাড়াও ডায়েটে বেশ কিছু খাবার রাখলে ঘুম আসবেও তাড়াতাড়ি, হবেও ভাল। চেষ্টা করুন ভাত, চিজ, আমন্ড, লেটুস, টুনা ফিশ, স্যালমন, চেরি, ফলের রস জাতীয় খাবার খাদ্য তালিকায় রাখতে।

বি:দ্র: আমাদের প্রতিটি লেখার নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুকপেজ-এ লাইক দিন এবং বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এবং যেকোন বিষয়ে জানতে চাইলে অথবা আপনার কোন লেখা প্রকাশ করতে চাইলে আমাদের ফেসবুক পেজ বিডি লাইফ এ যেয়ে ম্যাসেজ করতে পারেন।

ফেসবুকের হোমপেজে নিয়মিত আপডেট পেতে নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করুন

⇒ লেখাটি ভালো লাগলে প্লিজ বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। শেয়ার করতে √ এখানে ক্লিক করুন

আপনার ফেসবুক একাউন্ট থেকে খুব সহজেই কমেন্ট করুন

মন্তব্য করুনঃ

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন

four × 4 =