Fake Facebook Page

আমরা সবাই হয়ত অনলাইনে কাজ করে থাকি। অনলাইনে আপনার একাউন্টের চাবিকাঠি হল পাসওয়ার্ড। পাসওয়ার্ড হল সাইবার অপরাধীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করার প্রথম ধাপ। আপনার প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ অ্যাকাউন্টগুলির জন্য ভিন্ন শক্তিশালী পাসওয়ার্ডগুলি বাছাই করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং নিয়মিত আপনার পাসওয়ার্ড আপডেট করা ভালো। শক্তিশালী পাসওয়ার্ড তৈরি এবং নিরাপদ করতে জেনে নিন কিছু জরুরি পরামর্শ।

১. ভিন্ন ভিন্ন পাসওয়ার্ড ব্যবহার :
আপনার প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ অ্যাকাউন্ট যেমন ইমেল এবং অনলাইন ব্যাংকিং-এর জন্য ভিন্ন ভিন্ন পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন৷ আপনার বাড়ি, গাড়ি এবং অফিসের জন্য একই লক ব্যবহার করার মত প্রতিটি অনলাইন অ্যাকাউন্ট গুলির জন্য একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা হলে অপরাধী যদি একটিতে অ্যাক্সেস করতে পারে, তাহলে সবগুলিতে করতে পারবে। তাই আপনার ইমেইল বা ব্যাংক অ্যাকাউন্টের জন্য আপনি যে পাসওয়ার্ড ব্যবহার করেন, তা আরেকটি অনলাইন নিউজলেটারের জন্য ব্যবহার করবেন না। কম সুবিধাজনক হলেও একাধিক পাসওয়ার্ডের ব্যবহার আপনাকে নিরাপদ রাখবে।

২. গোপন স্থানে রাখুন :
পাসওয়ার্ডগুলি লিখে রাখা ভালো। তবে এটি একটু নিরাপদে রাখাই শ্রেয়। কখনই আপনার কম্পিউটার অথবা ডেস্ক ছেড়ে আসবেন না। যদি আসেন এর নিরাপত্তা বজায় রেখে তারপরে আসুন। মনে রাখবেন, ” কারো কাছে নিজের ল্যাপটপ/মোবাইল/ডেক্সটপ কম্পিউটার ছেড়ে আসা মানে তাকে আপনার সকল পাসওয়ার্ড দিয়ে আসা।”

৩. লম্বা পাসওয়ার্ড তৈরিঃ
নম্বর, অক্ষর এবং প্রতীক দিয়ে গঠিত একটি লম্বা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। এতে আপনার লম্বা পাসওয়ার্ড কারও পক্ষে অনুমান করা কঠিন হয়ে পড়বে। নম্বর, প্রতীক এবং বড় ছোট হাতের অক্ষরগুলি জুড়ে তৈরি করা পাসওয়ার্ড ভেদ করা অথবা অন্যদের দ্বারা অনুমান এবং ভাঙা কঠিন হবে। ‘১২৩৪৫৬’ এই ধরনের পাসওয়ার্ড ব্যবহার করবেন না এবং খুব সহজেই অনুমেয় যেমন আপনার ফোন নম্বর দিয়ে পাসওয়ার্ড কখনই করবেন না। এগুলো কোনোভাবেই নিরাপদ নয়।

৪. শুধু নিজেই জানুনঃ
এমন শব্দ ব্যবহার করে পাসওয়ার্ড তৈরি করুন যা শুধুমাত্র আপনিই জানেন। কেবলমাত্র আপনি জানেন এমন একটি শব্দগুচ্ছ মনে করুন এবং এটি মনে রাখার মাধ্যমে একটি বিশেষ ওয়েবসাইটের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত হন।

৫. প্রতিনিয়ত আপডেট করুনঃ
আপনার পাসওয়ার্ডটি যতটা সম্ভব আপডেট করুন। কারণ কখন কিভাবে আপনার পাসওয়ার্ড চুরি হয়ে যাবে আপনি হয়ত বুঝতে পারবেন না। তাই সম্ভব হলে কিছুদিন পর পর তা আপডেট করুন এবং মনে রাখার চেষ্টা করুন।

৬. পাসওয়ার্ডের পুনরুদ্ধারে বিকল্প স্থাপনঃ
যদি আপনি আপনার পাসওয়ার্ড ভুলে যান অথবা মনে করতে পারছেন না এমন হয় তাহলে আপনার অ্যাকাউন্টে ফিরে যেতে আপনার একটি উপায় প্রয়োজন। যদি আপনার পাসওয়ার্ড পুনরায় সেট করার প্রয়োজন হয়, তাহলে আপনার ইমেইল ঠিকানায় একটি পুনরুদ্ধার মেইল পাঠাবে। এতে দেখা যাবে আপনার পুনরুদ্ধার ইমেইল ঠিকানা আপ-টু-ডেট রয়েছে এবং অ্যাকাউন্টটি এখনও অ্যাক্সেস করতে পারেন। এছাড়াও কখনো কখনো পাঠ্য বার্তা মারফত আপনার পাসওয়ার্ড পুনরায় সেট করার জন্য একটি কোড পেতে আপনার প্রোফাইলে একটি ফোন নম্বর জুড়তে পারেন। কেননা আপনার অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখতে আপনার অ্যাকাউন্টে একটি মোবাইল নম্বর থাকা হল অন্যতম সহজ এবং সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য উপায়।

৭. বিকল্প নিরাপত্তা ই-মেইলঃ
অনেক সময় দেখা যায় আপনি আপনার ফেচবুক অ্যাকাউন্ট আপনার কোন এক বন্ধুকে দিয়ে খুলিয়েছেন। তিনি অ্যাকাউন্টটি খোলার সময় বিকল্প ই-মেইল হিসেবে তার ই-মেইলটি দিয়ে রেখেছে। এতে করে সে খুব সহজেই আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করতে পারবে । তাই সবসময় বিকল্প ই-মেইল হিসেবে নিজের অন্য একটি ই-মেইল দিয়ে রাখবেন।

সবশেষে অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি কথাঃ

আপনি যখন আপনার অ্যাকাউন্টে লগইন করেন তখন একবার হলেও অ্যাড্রেস বারের URL টি দেখে নিন ।
কেন বল্লাম? নিচের চিত্রটি বড় করে দেখুন। বুঝতে পারছেন কিছু?
Fake Facebook Page

এটি একটি ফেক ফেসবুক পেজ। দেখতে একই রকম হলেও এটা ফেক। এখানে আপনার ফেসবুক আইডি পাসওয়ার্ড দিলেই হ্যাকারের ডাটাবেজ-এ আপনার পাসওয়ার্ড চলে যাবে। এই ধরনের ফিসিং সাইট প্রায় সব ধরনের জনপ্রিয় ওয়েব সাইটেরই রয়েছে। তাই সাবধান হন।

বি:দ্র: আমাদের প্রতিটি লেখার নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুকপেজ-এ লাইক দিন এবং বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এবং যেকোন বিষয়ে জানতে চাইলে অথবা আপনার কোন লেখা প্রকাশ করতে চাইলে আমাদের ফেসবুক পেজ বিডি লাইফ এ যেয়ে ম্যাসেজ করতে পারেন।

ফেসবুকের হোমপেজে নিয়মিত আপডেট পেতে নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করুন

⇒ লেখাটি ভালো লাগলে প্লিজ বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। শেয়ার করতে √ এখানে ক্লিক করুন

আপনার ফেসবুক একাউন্ট থেকে খুব সহজেই কমেন্ট করুন

মন্তব্য করুনঃ

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন

nine + one =